Monday, June 24, 2024

অভিনব কায়দায় প্রতারনা ,অবশেষে ডিবি’র হাতে গ্রেপ্তার

রাজবাড়ী জার্নাল নিউজ ডেস্কঃ মানুষকে লোভে ফেলে প্রতারনার অভিযোগে রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার সোনাপুরের মোঃ নাছির উদ্দিন (২৭)কে গ্রেপ্তার করেছে রাজবাড়ী জেলা গোয়েন্দা সংস্থা (ডিবি) ।
রাজবাড়ী ডিবি’র ওসি মোঃ মনিরুজ্জামান এক বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ।

তিনি জানান, রাজবাড়ী জেলার সুযোগ্য পুলিশ সুপার জনাব এম এম শাকিলুজ্জামান স্যারের নির্দেশনায় এবং প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে অদ্য ১০/০৪/২০২৩ খ্রিঃ তারিখ ১৫.২৫ ঘটিকার সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ পরিদর্শক মোঃ মনিরুজ্জামান খান, অফিসার ইনচার্জ জেলা গোয়েন্দা শাখা, রাজবাড়ী এর নেতৃত্বে এসআই জাহাঙ্গীর মাতুব্বর, এসআই মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক, এএসআই শরীফুল ইসলাম, এএসআই মোঃ আশরাফ আলী, এএসআই শেখ রাজীব হোসেন, সঙ্গীয় ফোর্সসহ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করিয়া রাজবাড়ী জেলার রাজবাড়ী সদর থানাধীন খালিশা সোনাপুর সাকিনস্থ জনৈক মোঃ আতিয়ার রহমান শেখ (৬২), পিতা-মৃত ওহাব আলী শেখ এর বসত বাড়ীর পিছনের মেহগনি বাগান হইতে ১। মোঃ নাছির উদ্দিন (২৭), পিতা-মোঃ মজনু শেখ, সাং-খালিসা (সোনাপুর), থানা-রাজবাড়ী সদর, জেলা-রাজবাড়ীকে মোবাইল ফোন ব্যবহার করে বিভিন্ন মোবাইল কোম্পানির কাস্টমার কেয়ারের প্রতিনিধি সেজে প্রতারণার মাধ্যমে অসহায় মানুষের সরলতার সুযোগ নিয়ে বিকাশের মাধ্যমে টাকা গ্রহন করে আত্মসাৎ করার অপরাধে হাতে-নাতে গ্রেফতার করেন। গ্রেফতারকালে উক্ত আসামীর হেফাজত এবং প্রতারক চক্রের পলাতক সদস্যের ঘটনাস্থলে ফেলে যাওয়া প্রতারনার কাজে ব্যবহৃত মোট ০৩ টি মোবাইল ফোন জব্দ করেন। জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে ধৃত ব্যাক্তি স্বীকার করে যে, তাহারা উক্ত স্থানে বসে দীর্ঘদিন যাবৎ মোবাইল ফোনের মাধ্যমে বিভিন্ন মোবাইল কোম্পানির কাস্টমার কেয়ারের প্রতিনিধি সেজে বিভিন্ন মানুষকে ফোন করে লটারীর মাধ্যমে লোভনীয় পুরস্কার পাবার বয়ান দিয়ে টোপে ফেলে বোকা বানিয়ে প্রতারনার মাধ্যমে প্রতারকের ক্ষপ্পরে পড়া অসহায় সরল মানুষের টাকা বিকাশের মাধ্যমে গ্রহন করে আত্মসাৎ করে আসিতেছে। জিজ্ঞাসাবাদে সে আরো জানায় যে, সে গ্রেফতারের পূর্বে ইং ১০/৪/২০২৩ খ্রি: তারিখ সকাল ০৯.১৫ ঘটিকা থেকে ভিকটিম হালিমা (১৬), পিতা-শওকত মোল্লা, মাতা-রাজিয়া বেগম, সাং-কমলাপুর, ইউপি-আউরিয়া, থানা-নড়াইল, জেলা-নড়াইল এর মোবাইল নম্বর ০১৪০৯-৭৮৩২৮৩ তে ফোন করে বলেন আসসালামু আলাইকুম, আমি বাংলালিংক অফিস থেকে কাস্টমার কেয়ার প্রতিনিধি রিফাত মাহমুদ বলছি। বর্তমানে আমরা বাংলালিংক থেকে আপনার যে নাম্বারে ফোন করেছি, এ নম্বরটি কি আপনি ব্যবহার করেন, না আপনার পরিবারের অন্য কেউ ব্যবহার করে? আপনি নম্বরটি ব্যবহার করে গত মাসে বা চলতি মাসে আমাদের অফিস থেকে দুইশত বা তিনশত টাকার কোন বোনাস পেয়েছেন? আপনি যে নম্বরটি ব্যবহার করছেন বাংলালিংক ফোন কোম্পানীর ১২ বছর নের্টওয়ার্ক সার্ভিস উদযাপনে আপনি ১ লক্ষ ৬৫ হাজার টাকা পুরস্কার পাচ্ছেন। পুরস্কারটা পেতে যাচ্ছেন শুধুমাত্র কোম্পানীর নম্বর ব্যবহার করার জন্য। আপনি পুরস্কার পাবেন কখন, কোথায় পাবেন এবং কিভাবে পাবেন তাহা ০১৯৬৩-৭৪১৬৪২ এই নম্বরে ফোন করে জানতে পারবেন। তখন ভিকটিম হালিমা বর্নিত নাম্বারে ফোন করলে ধৃত প্রতারক বলেন, আপনাকে অনেক ধন্যবাদ কল করার জন্য, আপনি যে পুরস্কার পাবেন, তাহা দুই ভাগে পাবেন, প্রথমটি আপনার মোবাইলে নগদ টাকা পাবেন ৬৫ হাজার টাকা যা দিয়ে আপনি আগামী ০৭ বৎসর ফ্রি কল করতে পারবেন। এজন্য রেজিস্টেশন বাবদ আপনাকে খরচ সহ ৫শত টাকা ০১৯৯২৫০৭৮০৮ এই নম্বরে পাঠাতে হবে। ভিকটিম বর্নিত বিকাশ নাম্বারে টাকা দিলে প্রতারক ভিকটিম কে একটি ৬৫,০০০ টাকার মেসেজ পাঠায়। যে ম্যাসেজে লেখা থাকে, টাকা ৬৫,০০০ রিচার্জ সফল হয়েছে, ব্যালেন্স চেক ইনবক্স, মেয়াদ 7 বছর ২০৩০ শাল (ধৃত আসামীর প্রতারনার কাজে ব্যবহৃত জব্দকৃত মোবাইল চেক করে বর্নিত ম্যাসেজের সত্যতা পাওয়া যায়)। তখন প্রতারক ভিকটিমকে আবারও বলে বাকী ১,০০,০০০(এক লক্ষ) টাকা আমাদের কোম্পানী থেকে সরাসরি বাড়ীতে গিয়ে পৌছে দিয়ে আসবে। সেজন্য আপনাকে রেজিস্টেশন বাবদ একই বিকাশ নম্বর ০১৯৯২৫০৭৮০৮ তে খরচ সহ ৩০০০/ টাকা পাঠাতে হবে। ভিকটিম তখন প্রতারকের ফাঁকিতে বিশ্বাস স্থাপন করে প্রতারকের দেওয়া উক্ত বিকাশ নম্বরে খরচ সহ ৩০০০/- টাকা পাঠিয়ে দেয়। এরপরে প্রতারক আবারও ভিকটিমকে ফোন করে বলে, আপনার বাড়ীতে একজন পুলিশ, একজন ম্যাজিষ্ট্রেট এবং আমরা কোম্পানীর সিনিয়র জুনিয়র অফিসার আপনার বাসায় গিয়ে এক লাখ টাকা দিয়ে আসব, সেজন্য আপনাকে তেল খরচ বাবদ আরো ৩ হাজার টাকা দিতে হবে। ভিকটিম তেল খরচ বাবদ খরচ সহ ৩০০০/- টাকা বর্নিত বিকাশ নম্বরে পাঠালে প্রতারক ভিকটিমের মোবাইল নম্বরটি ব্লক লিস্টে দিয়ে দেন। এ ভাবেই বাংলা লিংকের কাস্টমার কেয়ারের প্রতিনিধি পরিচয়ে লটারীর মাধ্যমে পুরস্কার জেতার প্রলোভন দেখিয়ে টোপ দিয়ে অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছিল এই প্রতারক চক্র। আলোচ্য ঘটনার ভিকটিম হালিমা এর সাথে ০১৭১০-৬৯৩৭৪৪ নম্বরে যোগাযোগ করে তাহার সহিত এই অভিনব প্রতারনার সত্যতা পাওয়া যায়। মামলা রুজু প্রক্রিয়াধীন।

সর্বশেষ পোষ্ট

এই ধরনের আরো সংবাদ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here