Tuesday, April 23, 2024

বালিয়াকান্দিতে ইউনিয়ন এলএসপির বিরুদ্ধে করোনাকালীন সরকারী প্রণোদনার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

বালিয়াকান্দি প্রতিনিধিঃ  রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার জামালপুর ইউনিয়নের দায়িত্বপ্রাপ্ত এলএসপি মাসুদের বিরুদ্ধে খামারীদের সরকারী করোনাকালীন প্রণোদনা টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে।

এলাকাবাসী ও ভুক্তভোগীরা বলেন, মহামারী করোনা ভাইরাসের কারনে ক্ষতিগ্রস্ত খামারীদের মধ্যে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার কতৃক প্রণোদনার টাকা বিকাশ, নগদ একাউন্টের মাধ্যমে প্রদান করা হয়। কিন্তু আমরা সাধারন গরুর খামারীরা সেটা জানতাম না মাসুদ জামালপুর ইউনিয়নের বিভিন্ন খামারীদের কাছ থেকে মোবাইলের সিম সংগ্রহ করে এবং বলে উপজেলা প্রানীসম্পদ সিমগুলো সংগ্রহ করতে বলছে, তোমাদেরকে কিছু টাকা দেওয়া হবে, এব্যাপারে বাঁধুলী খালকুলার বাসিন্দা অহিদ শেখ জানান, মাসুদ কাকা আমার কাছে এসে বললো তোর সিমে কি বিকাশ খোলা, আমি বললাম হা, তখন তিনি বললো তোর সিমটা আমাকে দে, আমাকে একজন বিকাশে টাকা পাঠাবে, টাকা উঠানো হলে দিয়ে দিবো কথা শুনে আমি সিমটা দিয়ে দেয় কিন্তু আমার সিমটা আর ফেরত দিতে চায়না, পরে আমি আশে পাশে মানুষের কাছে জানতে পারি মাসুদ তিনি অনেকের সিম নিয়ে টাকা তুলছে, আমি আমার সিমটি চাইলেও সে আমাকে সিমটি দেয় না পরে আমি সিমটি অফিস থেকে তুলে চালু করতেই এসএমএস পায় ২২ হাজার টাকার। কিন্তু টাকাটা আমাকে দেয় না, টাকা চাইতে গেলে আমাকে হুমকি দেয় তোর নামে মামলা করবো, একই এলাকার জসীম শেখ জানান, আমার একটি সিম নিয়েছিল গরুর খামারীদের টাকা দেবে বলে কিন্তু দেয় নাই সিমটি চেয়েছিলাম বলে হারিয়ে গেছে, এব্যাপারে সাংবাদিক আসলে ভয়ে আমার সিমটি দিয়ে দেয় আমি টাকা চেয়েছিলাম কিন্তু সে বলে টাকা আসে নাই।

এব্যাপারে এলাকার ছেলে শহিদুল শেখের সাথে কথা বললে তিনি জানান, আমার সিমটিও নিয়েছিল তবে জানাজানি হওয়ার পর আমাকে কিছু টাকা দিয়ে হাত ধরে ক্ষমা চায়।
সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, জামালপুর ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রামের খামারীদের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোপ বিরাজ করছে। ৩০ থেকে ৩৫ টি গরুর খামারীদের টাকা জামালপুর বাজার ও মেগচামী মৃধা বাজারের বিকাশ এজেন্ট দোকান থেকে তুলে এই মাসুদ আত্মসাৎ করছে বলে দাবী এলাকাবাসীর। তারা মাসুদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়া উচিৎ বলে দাবী জানান।

এলএসপি মাসুদ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, এটা তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে।
প্রণোদনার টাকা আত্মসাৎ করার ব্যাপারে উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) ডাঃ শাহিনুজ্জামান বলেন, আমরা অভিযোগ পেয়েছি তদন্ত করে ব্যবস্থা নিবো।

এ ব্যাপারে বালিয়াকান্দি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আম্বিয়া সুলতানা জানান, আমরা অভিযোগ পেয়েছি, অভিযোগ সংশ্লিষ্ট দপ্তরে পাঠিয়েছি।

সর্বশেষ পোষ্ট

এই ধরনের আরো সংবাদ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here