Wednesday, February 8, 2023

রাজবাড়ী জেলায় ওএমএস/টিসিবি/খাদ্য বান্ধব কর্মসূচিতে চাল বিক্রয় কার্যক্রম উপলক্ষ্যে প্রেস ব্রিফিং

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ রাজবাড়ী জেলায় ওএমএস/টিসিবি/খাদ্য বান্ধব কর্মসূচিতে চাল বিক্রয় কার্যক্রম উপলক্ষ্যে রাজবাড়ী জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে স্থানীয় সাংবাদিকদের সঙ্গে প্রেস ব্রিফিং করেছেন রাজবাড়ী জেলা প্রশাসক আবু কায়সার খান।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ মাহাবুর রহমান শেখ, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মার্জিয়া সুলতানা, ডিসি ফুড এটিএম শাহ নেওয়াজ, সাংবাদিক মুসা বিশ্বাস , কালের কন্ঠ প্রতিনিধি মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন,প্রথম আলো প্রতিনিধি এজাজ আহমেদ,খোলা কাগজ প্রতিনিধি মোঃ কবির হোসেন, আমাদের সময় পত্রিকার প্রতিনিধি সোহেল রানা, বাংলাদেশ প্রতিদিন এর প্রতিনিধি দেবাষীশ বিশ্বাস, শেয়ার বিজ এর প্রতিনিধি খন্দকার রবিউল ইসলাম মজনু, জিটিভি প্রতিনিধি আশিকুর রহমান, এস এ টিভি’র সাজিদ হাসান লাখো কন্ঠ প্রতিনিধি মোর্শেদ আলম মালেক, সমকালে প্রতিনিধি সৌমিত্র শীল চন্দন সহ স্থানীয় প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ার সাংবাদিক বৃন্দ।

প্রেস ব্রিফিং-এ জেলা প্রশাসক আবু কায়সার খান লিখিত বক্তব্যে বলেন, Public Food Distribution System (পিএফডিএস) এর আওতায় খোলা বাজারে খাদ্য শস্য বিক্রয় একটি গুরুত্বপূর্ণ কর্মসূচি।
বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে খাদ্য শস্যের বাজার মূল্য ঊর্ধ্বগতির প্রবণতা রোধ করে নিম্ন আয়ের জনগোষ্ঠাকে মূল্য সহায়তা দেয়া এবং বাজারদর স্থিতিশীল রাখার লক্ষ্যে ওএমএস কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়।
সে লক্ষ্যে বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক ১ সেপ্টেম্বর থেকে ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত তিন মাস ওএমএস, টিসিবি এবং খাদ্য বান্ধব কর্মসূচিতে চাল বিক্রয়ের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে।
ওএমএস কর্মসূচিতে একজন ভোক্তা প্রতিদিন সর্বোচ্চ ৫ (পাঁচ) কেজি করে এবং টিসিবি কর্মসূচিতে একজন ভোক্তা পাক্ষিক ভিত্তিতে ৫ (পাঁচ) কেজি করে মাসে মোট ১০ (দশ) কেজি চাল ক্রয় করতে পারবেন। প্রতি কেজি চালের মূল্য ৩০/- (ত্রিশ) টাকা।
রাজবাড়ী সদর পৌরসভায় ১৯ জন ডিলারের মাধ্যমে প্রতিদিন ১০ (দশ) মে.টন, পাংশা পৌরসভায় ৪ জন ডিলারের মাধ্যমে প্রতিদিন ৮ (আট) মে.টন, গোয়ালন্দ পৌরসভায় ৪ জন ডিলারের মাধ্যমে প্রতিদিন ৮ (আট) মে.টন, কালুখালী উপজেলা সদরে ২ জন ডিলারের মাধ্যমে প্রতিদিন ৪ (চার) মে.টন এবং বালিয়াকান্দি উপজেলা সদরে ২ জন ডিলারের মাধ্যমে প্রতিদিন ৪ (চার) মে.টন চাল (জেলায় মোট ৩১ জন ডিলারের মাধ্যমে ৩৪ মে.টন চাল) বিক্রয় করা হবে। এ কার্যক্রম শুক্র ও শনিবার ব্যতিরেকে সপ্তাহে ৫ (পাঁচ) দিন চলবে।
এ কার্যক্রম সফল করার লক্ষ্যে ইতোমধ্যে প্রতিটি পৌরসভা এবং উপজেলায় মাইকিংসহ প্রচার প্রচারণা করা হয়েছে।
অপরদিকে, খাদ্য বান্ধব কর্মসূচিতে শুধুমাত্র কার্ডধারীরা প্রতি মাসে ৩০ (ত্রিশ) কেজি করে চাল ১৫ (পনের) টাকা দরে ক্রয় করতে পারবেন। এ কর্মসূচির কার্যক্রম ইউনিয়ন পর্যায়ে গ্রহণ করা হয়েছে।
রাজবাড়ী সদর উপজেলায় ২৯ জন ডিলারের মাধ্যমে ১২,৬০৩ জন কার্ডধারীর মধ্যে ৩৭৮.০৯০ মে. টন, পাংশা উপজেলায় ৩৩ জন ডিলারের মাধ্যমে ১৭,০১০ জন কার্ডধারীর মধ্যে ৫১০.৩০০ মে. টন, গোয়ালন্দ উপজেলায় ১২ জন ডিলারের মাধ্যমে ৬,০৯১ জন কার্ডধারীর মধ্যে ১৮২.৭৩০ মে. টন, কালুখালী উপজেলায় ২৫ জন ডিলারের মাধ্যমে ১২,৮৩৬ জন কার্ডধারীর মধ্যে ৩৮৫.০৮০ মে. টন এবং বালিয়াকান্দি উপজেলায় ১৪ জন ডিলারের মাধ্যমে ৭,৯৩৭ জন কার্ডধারীর মধ্যে ২৩৮.১১০ মে. টন চাল বিক্রয় করা হবে।
রাজবাড়ী জেলায় মোট ১১৩ জন ডিলারের মাধ্যমে ৫৬৪৭৭ জন কার্ডধারীর মধ্যে ১৬৯৪.৩১০মে.টন চাল দেওয়া হবে ।

সর্বশেষ পোষ্ট

এই ধরনের আরো সংবাদ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here