Thursday, April 18, 2024

কুষ্টিয়া পাসপোর্ট অফিসে সাংবাদিককে আটকে নির্যাতন ; দৃষ্টান্তমূলক বিচার দাবি বিএমএসএফ’র

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ মার্চ, ২০২৪: কুষ্টিয়া পাসপোর্ট অফিসের অনিয়ম দুর্নীতির সংবাদ সংগ্রহকালে সেখানকার কর্মচারী দালাল চক্রের মূলহোতা) হাসান ও আনসার সদস্যরা ঢাকা পোস্টের জেলা প্রতিনিধি রাজু আহমেদকে পেশাগত কাজে বাঁধাদান ও লাঞ্ছিত করে অফিস কক্ষে আটকে রাখার ঘটনা ঘটেছে। ষ্টাফরা মিলে তাকে জোরপূর্বক সহকারী পরিচালক সাজ্জাদ হোসেনের অফিস কক্ষে নিয়ে প্রায় এক ঘন্টা আটকে রেখে নির্যাতন করে। এসময় মোবাইল কেড়ে নিয়ে সব ছবি ও ভিডিও ডিলিট করে দেয়া হয়।

এ ঘটনায় বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরামের ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান ও কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সভাপতি আহমেদ আবু জাফর ঘটনার নিন্দা এবং দৃষ্টান্তমূলক বিচার দাবি করে বলেন, পাসপোর্ট অফিস রাষ্ট্রীয় একটি জরুরী সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান, সেখানে শুধু সাংবাদিক কেনো যে কারো প্রবেশাধিকার আছে। আপাদমস্তক দূর্ণীতিগ্রস্থ একটি প্রতিষ্ঠানে সাংবাদিককে অনুমতি নিয়ে প্রবেশ করতে হবে কেনো? বরং ঐ অফিসার ক্ষমতার অপব্যবহার করে সাংবাদিক রাজুর সাথে যে অমানবিক, পৈশাচিক কান্ড ঘটিয়েছে তাতে তার (অফিসারের) কারাদণ্ড হওয়া উচিত। সাংবাদিকরা সমাজের নানা অসঙ্গতি, দূর্ণীতির বিরুদ্ধে সম্মুখ সারির কলমযোদ্ধা হিসেবে তথ্য সংগ্রহে গিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হবে আর সেখানে সাংবাদিক সুরক্ষা আইন থাকবেনা; তা কি করে হয়? সাংবাদিকদের পেশাগত সুরক্ষা প্রদান রাষ্ট্রের মৌলিক কর্তব্য। অবিলম্বে রাষ্ট্র কর্তৃক সাংবাদিক সুরক্ষা আইন প্রণয়ন করে সাংবাদিকদের কাজের পরিবেশে ফিরিয়ে দিতে আহবান জানানো হয়।

রাজুর সাথে সৃষ্ট ঘটনার খবর পেয়ে সাংবাদিক সংগঠনের নেতারা সেখান থেকে তাকে উদ্ধার করে। এসময় পাসপোর্ট অফিসের লোকজন সাংবাদিকের সাথে সংগঠিত ঘটনার ভুল স্বীকার করে ক্ষমা চান এবং ম্যানেজ করার চেষ্টা করেন।

জানাগেছে, পাসপোর্ট অফিসের সহকারী পরিচালক সাজ্জাদ সাংবাদিক রাজুকে নানাভাবে গালাগালি দেন এবং নির্যাতন করেন। এসময় তিনি তাকে বলেন, পাসপোর্ট অফিসে সংবাদ সংগ্রহে আসলে বা ছবি তুলতে হলে আমার অনুমতি লাগবে। বিনা অনুমতিতে ছবি তোলা ভিডিও করার নিয়ম নেই। আমার অনুমতি ছাড়া আমার আফিসে এসে ঠিক করনি। আমি কে, তুমি আমাকে চিনো না। তোমাকে পুলিশে দিবো, জেলের ভাত খাওয়াবো।’

সর্বশেষ পোষ্ট

এই ধরনের আরো সংবাদ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here